শনিবার, ২৫ মে ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

ভোলায় বিএনপির এজেন্টদের তোফায়েলের হুমকির ফোনালাপ ফাঁস



তাজউদ্দীন

ভোলায় বিএনপির এজেন্টদের তোফায়েলের হুমকির ফোনালাপ ফাঁস ও রাতভর অভিযান সারাদেশের মতো ভোলা-১ আসনের নৌকা মার্কার প্রার্থী বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বিএনপির এজেন্টদের ফোন করে ও বাসায় বাসায় গিয়ে ৩০ ডিসেম্বর ভোট কেন্দ্রে না যাওয়ার হুমকি দিচ্ছে। ২৮ ডিসেম্বর সন্ধ্যা ৭: ২১ মিনিটে তোফায়েল আহমদের ভাগিনা ভোলা পৌরসভার মেয়র মনিরুজ্জামান যুগ্ম আহবায়ক সদর থানা ছাত্রদল নেতা আব্দুল লতিফ টিটুকে ফোন করে হুমকি দেয়। ফোনালাপটি স্যোসাল মিডিয়ায় ভাইরাল হওয়ায় তোলপাড় দেখা দিয়েছে। ফোনে মেয়র মনির টিটুকে হুমকি দিয়ে বলে, ‘বাসায় বসে বসে এজেন্ট ঠিক করো, পা হতে মাথা পর্যন্ত এমন মাইর দিবো একদম ছিঁড়ে ফেলবো। তোরে যেনও ভোটকেন্দ্রে না দেখি।’ একই হুমকি দেয়া হচ্ছে বিএনপির সব এজেন্টদের। স্বেচ্ছাসেবক দলের সাংগঠনিক সম্পাদক আকবর আকনের বাড়িতে ডিবি পুলিশ অভিযান চালিয়েছে। মিথ্যা মামলা দিয়ে একের পর এক অভিযান চালিয়ে ঘরছাড়া করেছে যুবদল নেতা কবির হোসেন, আসাদ খোকন ও ছাত্রদল নেতা মনিরকে। স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারন সম্পাদক আল আমিন, জেলা ছাত্রদলের সাংগঠনিক সম্পাদক জাহাঙ্গীরকেও নানাভাবে হুমকি দেয়া হচ্ছে। গণমাধ্যম বিএনপি ও ঐক্যফ্রন্টের ভুয়া ফোনালাপ ফাঁস করলেও আওয়ামীলীগ নেতার এই হুমকির ফোনরেকোর্ড প্রচার করছে না। দলান্ধ মিডিয়া নির্লজ্জ ভূমিকা পালন করছে। আইন শৃঙ্খলা বাহিনীও আওয়ামী সন্ত্রাসীবাহিনী হিসেবে কাজ করছে। ভোলায় শান্তিপূর্ণ ও নিরাপদ ভোট অনুষ্ঠানে ফোন করে এই হুমকির বিষয়টি রিটার্নিং অফিসার ও নির্বাচন কমিশনকে গুরুত্বের সাথে দেখার ও ব্যবস্থা নেয়ার দাবি সাধারন ভোটারদের।

ভোলায় তোফায়েল ভাগিনা মনিরের ফোনালাপ ফাঁস, প্রাণনাশের হুমকি

সারাদেশের মতো ভোলা-১ আসনের নৌকা মার্কার প্রার্থী বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদের ভাগিনা বিএনপির এজেন্টদের ফোন করে ও বাসায় বাসায় গিয়ে ৩০ ডিসেম্বর ভোট কেন্দ্রে না যাওয়ার হুমকি দিচ্ছে।

২৮ ডিসেম্বর সন্ধ্যা ৭: ২১ মিনিটে তোফায়েল আহমদের ভাগিনা ভোলা পৌরসভার মেয়র মনিরুজ্জামান মনির ছাত্রদল নেতা আব্দুল লতিফ টিটুকে ফোন করে এ হুমকি দেয়।

ফোনালাপটি সামাজিক মাধ্যমে ভাইরাল হওয়ায় ভোলায় তোলপাড় দেখা দিয়েছে। ফোনে মেয়র মনির টিটুকে হুমকি দিয়ে বলে, ‘বাসায় বসে বসে এজেন্ট ঠিক করো, পা হতে মাথা পর্যন্ত এমন মাইর দিবো একদম ছিঁড়ে ফেলবো। তোরে যেনও ভোটকেন্দ্রে না দেখি।’

একই হুমকি দেয়া হচ্ছে বিএনপির সব এজেন্টদের। বাড়িতে বাড়িতে গিয়ে হুমকি ও তল্লাশি করা হচ্ছে।

গণমাধ্যম বিএনপি ও ঐক্যফ্রন্টের ভুয়া ফোনালাপ ফাঁস করলেও আওয়ামীলীগ নেতার এই হুমকির ফোনরেকোর্ড প্রচার করছে না। দলান্ধ মিডিয়া নির্লজ্জ ভূমিকা পালন করছে। আইন শৃঙ্খলা বাহিনীও আওয়ামী সন্ত্রাসীবাহিনী হিসেবে কাজ করছে।

ভোলায় শান্তিপূর্ণ ও নিরাপদ ভোট অনুষ্ঠানে ফোন করে এই হুমকির বিষয়টি রিটার্নিং অফিসার ও নির্বাচন কমিশনকে গুরুত্বের সাথে দেখার ও ব্যবস্থা নেয়ার দাবি সাধারন ভোটারদের।