সোমবার, ২২ জুলাই ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৭ শ্রাবণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

নৌকার প্রত্যাশায় দেবর ভাবী



একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মৌলভীবাজার, রাজনগরে-৩ আসনে থেকে নৌকার মনোনয়ন চেয়েছেন আ’লীগের আট নেতা। ওই ৮ জনের মধ্যে রয়েছেন একই পরিবারের আপন বড় ভাই’র স্ত্রী (ভাবী) ও দেবর। উভয়ই দলীয় মনোনয় জমা দিয়ে দলের সভানেত্রী শেখ হাসিনার সাথে সাক্ষাৎকারও দিয়েছেন। এনিয়ে নির্বাচনী এলাকায় অনেকটা কৌতুহল সৃষ্টি হয়েছে।

মৌলভীবাজার-৩ থেকে এবার নৌকার মনোনয়ন প্রত্যাশিরা হলেন, বর্তমান সংসদ সদস্য ও সৈয়দ মহসিন আলীর স্ত্রী সৈয়দা সায়রা মহসিন, জেলা আওয়মীলীগের সভাপতি নেছার আহমদ, কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের শিল্প ও বাণিজ্য উপ-কমিটির সদস্য ও সাবেক ভিপি আব্দুল মালিক তরফদার সোয়েব, সাবেক বৃটিশ কাউন্সিলার এম এ রহিম (সিআইপি), স্বেচ্ছাসেবকলীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক সুব্রত পুরকায়স্থ, চেম্বারের সভাপতি কামাল হোসেন, জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক সাইফুর রহমান বাবুল ও প্রয়াত মন্ত্রী মহসীন আলী’র ভাই সৈয়দ লিয়াকত আলী।

এরই মধ্যে সৈয়দ লিয়াকত আলী প্রয়াত সমাজকল্যাণ মন্ত্রী সৈয়দ মহসীন আলী’র ছোট ভাই এবং সৈয়দা সায়রা মহসিন প্রয়াত সমাজকল্যাণ মন্ত্রী’র স্ত্রী। একটি সূত্র জানায়, উভয়ই দলীয় মনোনয়ন জমা দিয়ে নৌকার মাঝি হতে নিজ নিজ অবস্থান থেকে দলের হাইকমান্ডের সাথে জোর লবিং চালিয়ে যাচ্ছেন। নির্বাচনী এলাকায়ও তাদের নেতাকর্মীরা প্রচার প্রচারণা ব্যস্থ। তবে সর্বশেষ মৌলভীবাজার-৩ আসনে কে নৌকার কান্ডারি হচ্ছেন এনিয়ে তৃণমূল সরগরম।

প্রয়াত সমাজকল্যাণ মন্ত্রী সৈয়দ মহসীন আলী’র ছোট ভাই সৈয়দ লিয়াকত আলী বলেন, অতীতে সংসদ সদস্য ও পৌরসভা নির্বাচনে আ’লীগের বৃহত্তর একটি অংশ আমার বড় ভাই প্রয়াত সৈয়দ মহসীন আলী’র বিরোধীতা করেছিলেন। তার পরেও একাধিকবার মৌলভীবাজার পৌরসভা থেকে মেয়র ও মৌলভীবাজার, রাজনগর-৩ আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন। বিশেষ করে নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সাবেক অর্থমন্ত্রী মরহুম এম সাইফুর রহমানকেও বিপুল ভোটে পরাজিত করেন। যার নেপথ্যে আমার ভুমিকা ছিল। তিনি আরোও বলেন, আমাকে নৌকা প্রতীক দেয়া হলে ওই ভোট ব্যাংককে কাজে লাগিয়ে বিজয়ী হতে পারব। তারপরেও যদি কোনো কারনে আমাকে নৌকা দেয়া না হয়। তাহলে নেত্রী যাকে নৌকা দিবেন আমি তার পক্ষে কাজ করব।

সৈয়দা সায়রা মহসিন বলেন, আওয়ামাীলীগ পরিবারের সদস্য হিসেবে সবার মনোনয়ন চাওয়ার অধিকার আছে। মনোনয়ন প্রত্যাশিদের মধ্য থেকে হাইকমান্ড যাকেই নৌকা দিবে আমরা তার পক্ষে মাঠে কাজ করব।