সোমবার, ২২ জুলাই ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৭ শ্রাবণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

সিলেট-২ আসনে বিএনপির নতুন চমক ইলিয়াসপুত্র অর্নব!



নিউজ ডেস্ক:: একাদশ নির্বাচনকে ঘিরে সিলেটে একের পর এক চমক থাকছেই। এবার নতুন চমক নিখোঁজ বিএনপি নেতা ইলিয়াস আলীর বড় ছেলে ব্যারিস্টার আবরার ইলিয়াস অর্ণব। নিখোঁজের পর বাবার সন্ধান চেয়ে মায়ের পাশে বসে নীরবে অশ্রু ফেলেছিলেন। সেই আবরার নির্বাচনেও মায়ের পাশে থেকে জয় নিশ্চিত করতে চান। নির্বাচনে অংশ নিতেও প্রস্তুত তিনি। সিলেট-২ (বিশ্বনাথ-বালাগঞ্জ-ওসমানীনগর) সংসদীয় আসনে অর্ণবকে ঘিরেই এখন নতুন কৌতূহল।

নিখোঁজ বিএনপি নেতা ও সাবেক এমপি ইলিয়াস আলীর স্ত্রী তাহসিনা রুশদীর লুনা আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সিলেট-২ (বিশ্বনাথ-ওসমানীনগর) আসনে ধানের শীষ প্রতীকের একক প্রার্থী।এবার তার সঙ্গে যুক্ত হয়েছেন বড় ছেলে ব্যারিস্টার আবরার ইলিয়াস অর্ণব। ঢাকার নয়াপল্টনস্থ দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে মা ও নিজের দলীয় মনোনয়ন ফরম জমা দেন আবরার।

জানা গেছে, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রারের পদ থেকে সদ্য অবসরে যান ইলিয়াসের স্ত্রী তাহসিনা রুশদীর লুনা। আসন্ন নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করা নিয়ে কোনো জটিলতার সৃষ্টি হলে আবরারই এই আসনে প্রার্থী হবেন। আর এমন চিন্তা থেকেই প্রস্তুত করা হয়েছে তাকে। ইলিয়াস নিখোঁজের পর তার সন্ধানের দাবিতে আন্দোলন করতে গিয়ে প্রাণহানিরও নজির রয়েছে এই আসনে। এমনকি ইলিয়াস ইস্যুতে গত দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভোটারদের একজনও ভোট দিতে যায়নি এমন দুটি ভোটকেন্দ্র ছিল। ভোট সংখ্যা ছিল শূন্য।

পরিবার ও স্থানীয় বিএনপির দাবি, ইলিয়াসের প্রতি এই আবেগ ও ভালোবাসা এখনো সাধারণ মানুষের মাঝে বিদ্যমান। লুনা না হয়ে যদি আবরারও প্রার্থী হন, তাহলে সিলেট-২ আসনে ভোট বিপ্লব ঘটবে বলে দাবি বিএনপি নেতাদের।

ইলিয়াসের স্ত্রী তাহসিনা রুশদীর লুনা বলেন, ‘একটা কৌশল হিসেবে আবরার মনোনয়ন ফরম জমা দিয়েছে। আমার ছেলের দাখিলকৃত দলীয় মনোনয়ন ফরমে উল্লেখ রয়েছে- যদি কোনো কারণে আমি (লুনা) নির্বাচন করতে না পারি, তবে সে (আবরার) এই আসনে নির্বাচন করবে।’

নিজের মনোনয়ন বাতিল হবার মতো কোনো কারণ রয়েছে কী না জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘এমন আশঙ্কা উড়িয়ে দেয়া যাচ্ছে না। বর্তমান নির্বাচন কমিশনের ওপর শতভাগ আশ্বস্ত হবার মতো কিছু নেই। সুষ্ঠু নির্বাচন সম্পন্ন হলে বিএনপির সকল প্রার্থী বিপুল ভোটে জয়লাভ করবে।’

বিশ্বনাথ উপজেলা বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক বশির আহমদ বলেন, ‘যদি কোনো কারণে ম্যাডামের (লুনার) মনোনয়ন বাতিল করা হয়, সে ক্ষেত্রে ইলিয়াস পুত্রই হবেন এই আসনে বিএনপির কান্ডারি। তারা আমাদের পরিবারের অংশ। তাই যে প্রার্থী হবেন তাকেই বিজয়ী করতে আমরা প্রাণান্ত পরিশ্রম করব।’